বরিশালে বিএনপির সমাবেশ: লঞ্চ বন্ধ রাখতে মালিকদের এক শ্রমিকনেতার চাপ

নভেম্বর ০২ ২০২২, ১২:০৮

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল: বিএনপির বিভাগীয় গণসমাবেশকে কেন্দ্র করে বরিশালে দুই দফায় বাস ও থ্রি হুইলার বন্ধ ঘোষণার পর এবার যাত্রীবাহী লঞ্চ বন্ধ করার তৎপরতা শুরু হয়েছে।

৪ ও ৫ নভেম্বর লঞ্চ বন্ধ রাখার জন্য স্থানীয় এক শ্রমিকনেতা মালিকদের চাপ দিচ্ছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এদিকে গণসমাবেশ শুরুর তিন দিন আগেই নেতা-কর্মীদের বাসাবাড়িতে পুলিশি তল্লাশি হচ্ছে বলে দাবি করেছে বিএনপি। দলটির অভিযোগ, লোকসমাগম কমাতে তাদের প্রচারণায় বাধা দেওয়াসহ হুমকি দেওয়া হচ্ছে।

এর আগে সোমবার সন্ধ্যায় নগরের ৩০টি ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের আকস্মিক মিছিলে দুই দলেই উত্তেজনা বেড়ে যায়। তবে স্থানীয় আওয়ামী লীগ এবং পুলিশ প্রশাসন এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

বরিশালের একাধিক লঞ্চমালিক জানিয়েছেন, মহানগর শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক পরিমল চন্দ্র দাস সোমবার পোর্ট রোড লঞ্চ মালিক সমিতি ভবনে গিয়ে ৪ ও ৫ নভেম্বর লঞ্চ বন্ধ রাখার নির্দেশ দেন।

এর পর থেকে শ্রমিক নেতাদের পক্ষ থেকে মালিকদের ফোন করে দুই দিন সব ধরনের লঞ্চ বন্ধ রাখার জন্য বলা হচ্ছে।

মালিকেরা অভিযোগ করেছেন, শ্রমিক লীগ নেতা পরিমলের এ নির্দেশে লঞ্চ মালিকেরা বিব্রত অবস্থায় পড়েছেন।কারণ পরিমল দাস বরিশাল লঞ্চঘাটের তালিকাভুক্ত শ্রমিক। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার আগ পর্যন্ত তিনি শ্রমিকের কাজ করতেন।

দল ক্ষমতায় আসার পর তিনি পদ-পদবি পেয়েছেন। একজন শ্রমিক হয়ে মালিকদের এ ধরনের নির্দেশ দেওয়ার বিষয়টি ভালোভাবে নেননি লঞ্চ মালিকেরা।

জানতে চাইলে শ্রমিক লীগ নেতা পরিমল চন্দ্র দাস সাংবাদিকদের বলেন, ‘লঞ্চ বন্ধ হয়ে যাচ্ছে।’ কেন বন্ধ হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আপনারা কে জানেন না কেন বন্ধ হবে?’ আপনি লঞ্চ বন্ধ রাখতে বলেছেন কে না জানতে চাইলে পরিমল বলেন, ‘আমি তো সাধারণ শ্রমিক, আমি কেন লঞ্চ বন্ধ করতে বলব। শুনেছি মালিকদের কিছু দাবি আছে, তাঁরা দুই দিন লঞ্চ বন্ধ রাখবেন।’

তবে লঞ্চ মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ যাত্রী পরিবহন সংস্থার কেন্দ্রীয় সভাপতি ও বরিশাল জেলা শাখার আহ্বায়ক মাহতাব যদ্দিন আহমেদ (বীর বিক্রম) বলেন, লঞ্চ বন্ধ রাখার জন্য তিনি কাউকে নির্দেশনা দেননি। সংগঠনের নেতা হিসেবে তাঁর এ বিষয়ে কিছু জানা নেই।

বিআইডব্লিউটিএর বরিশাল বন্দর কর্মকর্তা আব্দুর রাজ্জাক মঙ্গলবার জানান, লঞ্চ বন্ধ রাখার বিষয়ে মালিকপক্ষ থেকে তাদের কোনো কিছু জানানো হয়নি।

মালিকদের কোনো দাবি-দাওয়া আছে কি না, এসব বিষয় নিয়েও স্থানীয় কর্মকর্তা হিসেবে তাঁর সঙ্গে আলোচনা করেননি।

এদিকে নৌযান শ্রমিক ফেডারেশনের বরিশাল জেলা সভাপতি মাস্টার হাশেম জানান, শ্রমিকদের স্থানীয় পর্যায়ে কোনো দাবি-দাওয়া নেই।

তাই স্থানীয়ভাবে কোনো ধর্মঘট করার পরিকল্পনাও তাদের নেই। তিনি বলেন, ‘শুনেছি খুলনায় বিএনপির গণসমাবেশের সময় ওপর মহলের নির্দেশে লঞ্চ বন্ধ রাখা হয়েছে।

বরিশালেও এ ধরনের কোনো নির্দেশ এলে শ্রমিকেরা লঞ্চ চালাবে না।’ জানতে চাইলে বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক বিলকিস জাহান শিরিন বলেন, তাদের বেলস পার্ক মাঠ প্রস্তুতের কাজ শুরু হয়ে গেছে।

পুরোদমে চলছে প্রচারণা। কিন্তু সমাবেশ বানচাল করার জন্য এবার লঞ্চ বন্ধের পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে বলে তাঁরা জানতে পারেন।

বিএনপি নেত্রী শিরিন অভিযোগ করেন, পুলিশ বাকেরগঞ্জে সাবেক এমপি আবুল হোসেন খানের প্রচারণায় বাধা ও লাঠিপেটা করেছে।

নগরের ৩০ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির আহ্বায়ক সজিব মিষাদ বেগের ওপর হামলা করেছে আওয়ামী লীগ, উত্তর জেলা বিএনপির সম্পাদক মুকুলের গৌরনদীর বাসায় পুলিশ তল্লাশি চালিয়েছে, বেতাগী বিএনপির আহ্বায়ক হুমায়ুনের বাসায় পুলিশ গেছে, বানারীপাড়ায় লাঞ্ছিত করা হয়েছে বিএনপি নেতা গোলাম মাহামুদ মাহাবুব মাস্টারকে।

জানতে চাইলে বরিশাল মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাসান মাহমুদ বাবু বলেন, ‘শ্রমিক লীগের পরিমল তাহলে বিরাট নেতা! তার কথায় মালিকেরা কেন লঞ্চ বন্ধ রাখবে।

কেন আমরা (আওয়ামী লীগ) লঞ্চ বন্ধের কথা বলব।’ মিছিলে হুমকি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমরা কি রাজনীতি করতে পারব না?’

মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক মনিরুজ্জামান ফারুক বলেন, গণসমাবেশে এ ধরনের প্রতিবন্ধকতা এলে কর্মসূচি আরও সফল হবে। তারা জনসমাগম থামাতে এই সব হুমকি দিচ্ছে।

জানতে চাইলে বাকেরগঞ্জ থানার ওসি আলাউদ্দিন মিলন বলেন, সাবেক এমপি আবুল হোসেন নিজেকে হাইলাইট করার জন্য মিথ্যা প্রচার করছেন।

তিনি পূজার এলাকায় মিছিল ঢুকিয়েছেন। একই সময় তাঁর দলীয় প্রতিপক্ষ শওকত চেয়ারম্যান গ্রুপও মিছিল বের করে। এ অবস্থায় তাঁরা অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা এড়াতে দুই পক্ষকে সরিয়ে দিয়েছেন।

আ/ মাহাদী

সংবাদটি শেয়ার করুন....

আমাদের ফেসবুক পাতা

আজকের আবহাওয়া

পুরাতন সংবাদ খুঁজুন

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১  

এক্সক্লুসিভ আরও