বরিশোলে মুখোমুখি অবস্থানে আ‘লীগ-বিএনপি ॥ সংঘাতের আশঙ্কা

নভেম্বর ০২ ২০২২, ২৩:২৮

নিজস্ব প্রতিবেদক ‍॥ বরিশালে বিএনপি-আওয়ামী লীগ মুখোমুখি অবস্থানে রয়েছে। আগামী ৫ নভেম্বরের বিভাগীয় গণসমাবেশ সফল করতে রাজপথে নেমেছে বিএনপিসহ অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠন। গত কয়েক দিন ধরে ধারাবাহিকভাবে মিছিল, গণসংযোগ ও লিফলেট বিতরণ করছেন তারা।

অপরদিকে, ১১ নভেম্বর ঢাকায় যুবলীগের ৫০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর সমাবেশ সফল করতে ১০ নভেম্বর পর্যন্ত বরিশালে প্রতিদিন সব ওয়ার্ডে মিছিল কর্মসূচি ঘোষণা করেছে যুবলীগ। একই সময় প্রধান দুই দল রাজপথে থাকায় বড় ধরনের সংঘাতের আশঙ্কা করছে নগরবাসী।

বিএনপির দাবি, তাদের গণসমাবেশ ব্যাহত করতে উদ্দেশ্যমূলকভাবে কর্মসূচি দিয়েছে যুবলীগ। তবে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর সমাবেশ সফলের লক্ষ্যে তৃণমূল উজ্জীবিত রাখতে এই কর্মসূচি দেওয়া হয়েছে বলে দাবি আওয়ামী লীগের।

নগরীর বঙ্গবন্ধু উদ্যানে ৫ নভেম্বরের বিভাগীয় গণসমাবেশ সফল করতে গত ২৯ অক্টোবর থেকে ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা শুরু করেছে বিএনপি এবং অঙ্গ-সহযোগী সংগঠন। প্রতিদিন নগরীর বিভিন্ন ওয়ার্ডে গণসংযোগ ও লিফলেট বিতরণ করছে বিএনপি। এছাড়া যুবদল, ছাত্রদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, মহিলা দল ও কৃষক দলসহ অন্যান্য সংগঠনও প্রস্তুতি সভা, পথসভা, মিছিল ও লিফলেট বিতরণ করছে। সবশেষ বুধবার দুপুর ১২টার দিকে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান প্রফেসর ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন ও যুগ্ম মহাসচিব মজিবর রহমান সরোয়ারের উপস্থিতিতে নগরীর নাজির মহল্লা থেকে বাজার রোডসহ বিভিন্ন এলাকায় গণসংযোগ করে বিএনপি।

এর আগে বেলা সাড়ে ১১টায় নগরীর সদর রোডে বিক্ষোভ মিছিল করে যুবদল। দুপুর ১টায় প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে বিএনপি। গণসমাবেশ সফল করতে বুধবার সন্ধ্যায় বঙ্গবন্ধু উদ্যানে ৩০টি ওয়ার্ড বিএনপির প্রস্তুতি সভার আয়োজন করা হয়। আগামী ৪ নভেম্বর পর্যন্ত নগরীর প্রতিটি ওয়ার্ডে বিএনপি এবং অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের গণসংযোগসহ প্রচারণা রয়েছে বলে জানিয়েছেন মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব মীর জাহিদুল কবির।

এদিকে, গত ৩১ অক্টোবর থেকে আগামী ১০ নভেম্বর পর্যন্ত নগরীর প্রতিটি ওয়ার্ডে প্রতিদিন সন্ধ্যায় বিক্ষোভ মিছিলের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে যুবলীগ। যুবলীগের ব্যানারে কর্মসূচি হলেও আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগসহ তাদের বিভিন্ন সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরাও অংশ নিচ্ছে মিছিলে। মিছিলের মাধ্যমে তৃণমূলকে উজ্জীবিত রেখে আগামী ১১ নভেম্বর ঢাকায় যুবলীগের ৫০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে ব্যাপক সমাগম ঘটানোর পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানিয়েছেন মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাসান মাহমুদ বাবু।

পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি চলাকালে গত সোমবার নগরীর কালীপুর এলাকায় ৩০ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির মিছিলে হামলা চালানোর অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় যুবলীগের বিরুদ্ধে। আগামী ৫ নভেম্বর বিভাগীয় গণসমাবেশ উপলক্ষে বিএনপি এবং কেন্দ্রীয় সমাবেশ সফল করতে যুবলীগ রাজপথে থাকায় যেকোনো সময় বড় ধরনের সংঘাত হতে পারে বলে আশঙ্কা জনসাধারণের।

তবে কোনো সংঘাতের উদ্দেশ্যে নয়, কেন্দ্রীয় সমাবেশ উপলক্ষে তৃণমূল যুবলীগ নেতাকর্মীদের চাঙ্গা রাখতে ১০ নভেম্বর পর্যন্ত সকল ওয়ার্ডে যুবলীগের মিছিলের কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে বলে দাবি মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাসান মাহমুদ বাবুর।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ গণতান্ত্রিক দল। এই দলের সকল রাজনৈতিক কর্মসূচি গণতান্ত্রিক। অভিযোগ করা বিএনপির অভ্যাস। শুধুমাত্র অভিযোগ করার জন্যই তারা আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে অভিযোগ করছে।

এদিকে মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব মীর জাহিদুল কবির বলেন, তারা ৪ ও ৫ নভেম্বর বাস-লঞ্চ এবং থ্রি হুইলার বন্ধ করেছে। বিএনপির গণসমাবেশের প্রাক্কালে তারা (আওয়ামী লীগ) প্রতিদিন ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে মিছিল করছে। পায়ে পা দিয়ে ঝগড়া কিংবা সংঘাতের উদ্দেশ্যেই তারা এই কর্মসূচি নিয়েছে। তবে বিএনপি এসব এড়িয়ে শান্তিপূর্ণ সমাবেশের প্রস্তুতি নিয়েছে। ৫ নভেম্বর জনস্রোতে সব বাধা উড়ে যাবে বলে তিনি দাবি করেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন....

আমাদের ফেসবুক পাতা

আজকের আবহাওয়া

পুরাতন সংবাদ খুঁজুন

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১  

এক্সক্লুসিভ আরও