নলছিটিতে ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে ২০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেওয়ার অভিযোগ

নভেম্বর ০১ ২০২২, ১৫:৩০

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল: ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলার ভৈরবপাশা ইউপির বড়প্রেমহার গ্রামের হতদরিদ্র সাইদুলের ৪০ দিনের কর্মসুচির মোট ২০ হাজার টাকা ইউপি সদস্য বশির উদ্দিন বাসেত জোমাদ্দার ছিনিয়ে নিয়েছেন।

ভুক্তভোগী সহিদুল ইসলাম জানান, গত কুরবানির ঈদের দুই দিন পূর্বে ইউপি সদস্য বাসেত জোমাদ্দার বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে ষাটপাকিয়া বাজারের রাকিব টেলিকমের দোকান থেকে শহিদুলকে মারধর করে বিকাশের টাকা উঠিয়ে নিয়ে যায়।

এ ব্যাপারে শহিদুল নলছিটি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর একটি অভিযোগ দাখিল করেন। ইউএনও রুম্পা শিকাদার ১নং ভৈরবপাশা ইউপি চেয়ারম্যান আ. হককে নির্দেশ দেন শহিদুলের বিষয়টি দেখার জন্য।

ইউপি চেয়ারম্যান এ ব্যাপারে সকাল থেকে রাত অব্দি বসিয়ে রেখে শহিদুলকে জানান, টাকা ছিনিয়ে নেওয়ার ঘটনার সাক্ষী সমেত হাজির হতে বলেন এবং বিদায় করে দেন শহিদুলকে।

যে ঘটনা নিয়ে পুরো ১নং ভৈরবপাশা ইউপিবাসী আলোচনা চলছে। সেই ঘটনার সাক্ষী সমেত হাজির হতে বলেন শহিদুলকে।

শহিদুল ঐইউপির বড় প্রেমহার গ্রামের তালেব আলীর ছেলে। সে একজন নিতান্তই গরিব মানুষ। মানবেতর জীবনযাপন করে।

স্থানীয়রাসহ ইউপিবাসীর দাবি শহিদুলের টাকা ফের দেওয়া হোক। বিষয়টি কর্তৃপক্ষের দৃষ্টিগোচর দাবি জানান স্থানীয়রা।

এ ব্যাপারে বড় প্রেমহার গ্রামের ইউপি সদস মো. বসির উদ্দিন বাসেত জোমাদ্দার মুঠোফোনে জানান, অতি দরিদ্র ৪০ দিনের কর্মসুচি প্রকল্পের ২য় পর্যায় এ সিপিসি তিনি নন। সিপিসি ইউপি সদস্য শাহাজাদা লস্কর ও ইউপি সদস্য পারভেজ মল্লিক।

আরও জানান, শহিদুলের সাথে দেখা বা কথা কোনো ঘটনাই ঘটেনি। শহিদুল উল্টা পাল্টা কথা বলছে। এ ব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান আ. হকের সঙ্গে যোগাযোগ করতে তার মুঠোফোনে একাধিকবার কল দেওয়া হলেও তিনি রিসিভ করেননি।

আ/মাহাদী

সংবাদটি শেয়ার করুন....

আমাদের ফেসবুক পাতা

আজকের আবহাওয়া

পুরাতন সংবাদ খুঁজুন

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১  

এক্সক্লুসিভ আরও